নিউজ টপ লাইন

নাঙ্গলকোট সরকারি কলেজে কমিটি থাকলেও কার্যক্রম নেই ছাত্রদলের!

জামাল উদ্দিন স্বপন:
কমিটি না থাকার অজুহাতে ও উপজেলা বিএনপির হাইকমান্ডের তেমন তৎপরতা না থাকার অজুহাতে দীর্ঘদিন ধরে ছিল না কলেজ ছাত্রদলের দলীয় কর্মসূচি বাস্তবায়ন,কোনো মিটিং মিছিল ও সমাবেশ। সরকার বিরোধী আন্দোলনের ছিল না কোনো অবদান ক্যাম্পাসে দেখা মেলে না শীর্ষস্থানীয় নেতাদের। তারা শুধু নামেই নাঙ্গলকোট হাসান মেমোরিয়াল সরকারি কলেজের ছাত্রনেতা! গত একদশক ধরে নাঙ্গলকোট উপজেলা বিএনপি রয়েছে ২ নেতার টানাটানিতে। তেমনি ছাত্ররাও রয়েছে নানান দল ও উপদলে বিভক্ত। উপজেলা,পৌরসভা ও ১৬টি ইউনিয়নের প্রভাব পড়েছে উপজেলার ১৩টি কলেজের মত একমাত্র সরকারি কলেজ টিতেও। এতে কেন্দ্রীয় কমিটির সাথে তাল মিলিয়ে কমিটি গঠন হলেও সংগঠিত হওয়া দূরের কথা, দিন দিন নিষ্ক্রিয়তা বাড়ছে। এতে পদপ্রার্থী নেতাসহ নতুন করে কলেজে ভর্তি হওয়া নেতা-কর্মীদের মাঝে দেখা দিয়েছে হতাশা। এটাই হলো কুমিল্লার নাঙ্গলকোট হাসান মেমোরিয়াল সরকারি কলেজ ছাত্রদলের বর্তমান অবস্থা। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক কর্মী জানান ক্যাম্পাসে কার্যক্রম চালানোর জন্য দিক নিদের্শনা দেওয়ার মতো কোনো নেতা নেই। নেতাদের কারও ছাত্রত্ব বাতিল,কারও ছাত্রত্ব নেই,কেউ কেউ বিবাহিত। কেউ আবার গোপনে ছাত্রলীগে যোগ দিচ্ছেন,আবার কেউ পালিয়ে বেড়াচ্ছেন, আবার ওবায়দুল নামে এক ছাত্রদল নেতা ছাত্রলীগে যোগ দিয়ে কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতিও হয়েছেন। ফলে ক্যাম্পাসে কার্যক্রম চালানোর মত পরিবেশ যেমন নেই,নেতা ও নেই। জানা গেছে, নাঙ্গলকোটের ৩২৯ টি গ্রামসহ ১৬টি ইউনিয়ন, ১টি পৌরসভা, উপজেলা কমিটি, ১৩টি কলেজ, অর্ধশতাধিক হাইস্কুল, অর্ধশতাধিক মাদ্রাসাতে ছাত্রদলের কমিটি রয়েছে। সবগুলোর সাথে বিগত সময়ে তাল মিলিয়ে নাঙ্গলকোট সরকারি কলেজ ও সরকার বিরোধী আন্দোলনে সক্রিয় ভূমিকা রাখতে এবং ছাত্রদলের নেতা-কর্মীদের উজ্জীবিত করতে নতুন কমিটি দেওয়া হয়। কিন্তু আগের মতই নিষ্ক্রিয় কলেজ ছাত্রদল নেতারা। কলেজ শাখা ছাত্রদলের সভাপতি খলিলুর রহমান সোহাগ বলেন- পরিস্থিতি অনুকূলে না থাকায় আমরা ক্যাম্পাসে আসা যাওয়া করতে পারছি না।’
জামাল উদ্দিন স্বপন

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Scroll To Top