নিউজ টপ লাইন

নৌ-যান রেজিস্ট্রেশনে ভয়াবহ দুর্নীতি দুদকের তদন্ত ধামাচাপায় সমুদ্র অধিদপ্তরে ফন্দিফিকির

অভ্যন্তরীণ নৌ-যান সার্ভে এবং রেজিস্ট্রেশনে ভয়াবহ দুর্নীতি হয়েছে। নকশা ছাড়াই ভুয়া ও জাল কাগজপত্রের মাধ্যমে নৌযান রেজিস্ট্রেশন করে সরকারের কোটি কোটি টাকা রাজস্ব ফাঁকি দেওয়া হয়েছে। এমনকি চার দশকের পুরনো জাহাজ নতুন দেখিয়ে রেজিস্ট্রেশন প্রদান করেছে। দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) তদন্তে বেরিয়ে এসেছে পিলে চমকানো এমন চিত্র। এখন সেই তদন্ত ধামাচাপা দিতেই দুর্নীতির সাথে সংশ্লিষ্টরা নানা ফন্দি ফিকির করছে।
প্রসঙ্গত, অভ্যন্তরীণ নৌ-যানের সার্ভে সনদ (ফিটনেস সনদ) ও রেজিস্ট্রেশন প্রদানের এখতিয়ার নৌ মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন সমুদ্র পরিবহন অধিদফতরের। তবে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের দুর্নীতি ও জালিয়াতির কারণে ত্রুটিপূর্ণ নৌযানগুলো চলাচলের অনমুতি পাচ্ছে। এতে একদিকে সরকার যেমন বিপুল অংকের রাজস্ব হারাচ্ছে, তেমনি নৌপথ পরিণত হয়েছে মৃত্যুফাঁদে। অথচ বারবার দায়ীরা থেকে যাচ্ছে অধরা। এমনই এক দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা হলেন প্রকৌশলী ও শিপ সার্ভেয়ার মির্জা সাইফুর রহমান। তার বিরুদ্ধে দুই বছরের বেশি সময় ধরে তদন্ত করেও কোনো প্রতিবেদন দিতে পারছে না দুদক। সমুদ্র পরিবহন অধিদফতরের একটি চক্র বিষয়টি ধামাচাপায় নানা ফন্দিফিকির চালাচ্ছে বলে অভিযোগ ওঠেছে।
দুদক সূত্র মতে, শিপ সার্ভেয়ার মির্জা সাইফুরের বিরুদ্ধে ত্রুটিপূর্ণ নৌযান নিবন্ধন এবং অবৈধভাবে সার্ভে সনদ দিয়ে কোটি কোটি টাকার রাজস্ব ফাঁকির অভিযোগ তদন্তে বেশ তথ্য প্রমাণ মিলেছে। এর মধ্যে এমভি বোরহান কবির যার প্রাক্তন নাম এমভি জয়খান-৫ এবং এম.এল বাদল প্রাক্তন নাম এম.এল রুমা নৌযান দুইটি প্রায় চার দশকের পুরনো। স্ক্র্যাপ করার পরিবর্তে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে সেগুলো নুতন হিসেবে রেজিস্ট্রেশন করা হয়েছে। অন্য অভিযোগের মধ্যে রয়েছে নৌযানগুলির গ্রসটন কম ধরে সরকারের লাখ লাখ টাকা রাজস্ব ফাঁকি দেয়া হয়েছে। নৌযান গুলির নকশার সাথে বাস্তব কাঠামোর কোন মিল নেই। অনেক নৌযানের ডক সনদ এবং ভ্যাট আদায়ের ছাড়পত্র ভুয়া। তবে এ তদন্তকে ভিন্নখাতে নিতে শুরু থেকেই একটি চক্র তৎপর। এরা বিভিন্ন কূট কৌশলের মাধ্যমে প্রকৃত সত্যকে আড়াল করতে চাইছে। সম্প্রতি দুদকের একটি চিঠির প্রেক্ষিতে সমুদ্র পরিবহন অধিদফতরের গৃহীত পদক্ষেপে এ অভিযোগ দৃঢ়তা পেয়েছে।
জানা গেছে, মির্জা সাইফুরের বিরুদ্ধে নৌ-যান রেজিস্ট্রেশন প্রদান করে রাজস্ব ফাঁকি ও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ অনুসন্ধানের স্বার্থে সহায়তা চেয়ে গত ১৫ আগস্ট সমুদ্র পরিবহন অধিদফতরের মহাপরিচালককে একটি চিঠি দেয় দুদক। দুদকের উপপরিচালক শেখ আবদুস ছালাম স্বাক্ষরিত ওই চিঠির সঙ্গে ৫৭টি নৌযানের তালিকা সংযুক্ত করে সেগুলো সরেজমিন যাচাইয়ের গুরুত্ব তুলে ধরা হয়। একই সঙ্গে নৌ-যান রেজিস্ট্রেশন কাজে পারদর্শী তিন সদস্য বিশিষ্ট টিম গঠন করে অবহিত করার জন্য চিঠিতে উল্লেখ করা হয়। ‘বিষয়টি অতীব জরুরী’ উল্লেখ করে চিঠিতে আরো বলা হয়, নিয়োজিত প্রকৌশলীদের সাথে আলাপ আলোচনার মাধ্যমে বাস্তব যাচাই কাজের তারিখ নির্ধারণ করা হবে। এ প্রেক্ষিতে  গত ২১ আগস্ট প্রকৌশলী ও শিপ সার্ভেয়ার মো. মুঈন উদ্দিন জুলফিকারকে আহ্বায়ক করে তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করে সমুদ্র পরিবহন অধিদফতর। কমিটির অপর দুই সদস্য হলেন মো. হুমায়ুন কবির ও মো. শাহরিয়ার হোসেন। সমুদ্র পরিবহন অধিদফতরের মহাপরিচালক কমোডর এম জাকিউর রহমান ভূঁইয়া স্বাক্ষরিত অফিস আদেশে কমিটিকে ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত করে সুপারিশসহ প্রতিবেদন পেশ করার নির্দেশ দেয়া হয়।
অভিযোগ রয়েছে, দুদকের চিঠির প্রেক্ষিতে সমুদ্র পরিবহন অধিদফতর কমিটি গঠন করলেও সেটি ছিল আইওয়াশ। কেননা, দুদকের চিঠিতে রেজিস্ট্রেশনকৃত নৌ-যানগুলো সরেজমিন যাচাইয়ের জন্য পারদর্শী সার্ভেয়ার বা প্রকৌশলীর সহায়তা চাওয়া হয়েছে। অর্থাৎ দুদকের তদন্ত কর্মকর্তা সমুদ্র পরিবহন সংশ্লিষ্টদের সাথে নিয়ে নিজেরা প্রতিটি নৌযান স্বচক্ষে দেখবেন। অথচ সমুদ্র পরিবহন সংশ্লিষ্টরা দুদককে পাশ কাটিয়ে পৃথক তদন্ত করতে চাইছে। যা রহস্যজনক।
দুদকের চিঠিতে যেসব নৌযানের উল্লেখ রয়েছে সেগুলো হলো এমভি মিরাজ-২, এমভি পিনাক-৬, এমভি বোরহান কবির যার প্রাক্তন নাম এমভি জয়খান-৫, এম.এল বাদল প্রাক্তন নাম এম.এল রুমা, এমভি আলতাফ-১, এমভি এন.এ-৬, এমভি নজিব বেপারী, এমভি ড্রীম-৬, এমভি আল ইত্তেহাদ-২, এমভি আল ইত্তেহাদ-৩, ওটি কিংফিশার-৭, ৮ ও ১০, এমভি সুমনা, এমভি সুন্দরবন-১১, এমভি এইচ পিএল-১ ও ২, ওটি হযরত বাহাদুর শাহ, এমভি হাজী ইমন আলী, এমভি অতিফা জাহান, ওটি দারিন দাশাব-১, এমভি সান্নিধ্য, ওটি আওলাদ ২ ও ৪, এমভি ফারহাত, এমভি শাহরাস্তি-৩, এমভি শাহিন রিফাত-১, এমভি সোনার তরী, এমভি ইমাম হাসান-২, এমভি গোল্ডেন পোস, এমভি বালশুর-১, এমভি নিউ স্টার-৫ ও ৬, এমভি ময়ুর-৭, এমভি জাবেদ-১১, এমভি বনি হাসান, এমভি ঈগল-৩ ও ৪, ওটি ওশান প্রিন্স, ওটি ওশান, এমভি শান্তা রূপা-৪ ও ৫, এমভি ওয়াটারবাজ-৩, ৪, ৫ ও ৬, এমভি জাভেদ-১২, ওটি নোভা, এমভি আক্তার বানু, এম এল বাদশা, এমভি মিতালী-৪, এমভি আকাশ-১৩, ওটি মেঘবতী, এমভি মানিক-৯. এমভি নিউ সাব্বির-২ ও ৩, এমভি সর্দার বাড়ী, এমভি মান-৭, এমভি মমিন আমিন, এমভি রাজহংস-৮, ওটি রিদা, ওটি রিদা-১, ওটি আফসারা, এমভি জেসি-২, এমভি সিটি ও এমভি স¤্রাট-২।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Scroll To Top